সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও মাদক প্রতিরোধে রাজনৈতিক অঙ্গীকার চাই: বি চৌধুরী

যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী দেশ থেকে সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও মাদক নির্মূলের জন্য রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও ধর্মীয় নেতৃত্বকে অঙ্গীকারাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ লেবার পার্টি আয়োজিত ‘সন্ত্রাস, মাদক দুর্নীতি প্রতিরোধে রাজনীতিবিদদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বি চৌধুরী এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, গত ১০ বছরে দেশ অনেক এগিয়েছে, ইতিবাচক উন্নয়ন হয়েছে। সাড়ে ৫ ডলারের মাথাপছিু আয় হয়েছে ১৭-১৮শ ডলার। ১০ বছরের যে অর্জন তা পাকিস্তানকেও ছাড়িয়ে গেছে। মৎস্য উৎপাদন আমাদের অহংকার বিশ্বে চতুর্থ। খাদ্য উৎপাদনও বেড়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার ম্যাজিকাল উন্নতি হয়েছে। নিজেদের টাকায় আমরা পদ্মাসেতু করতে পারছি। এসব দেখে পাকিস্তানও বাংলাদেশের মতো হতে চায়। বিদ্যুৎ আমাদের এখানে ৬/৭ টাকা ইউনিট, সেখানে পাকিস্তানে ১৭/১৮ টাকা ইউনিট, আমাদের এখন বিদুৎ যায় না, পাকিস্তানে ১২/১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়। ওদের তুলনায় আমাদের রফতানি আয় ৫০ ভাগ বেশি। বাংলাদেশে গড় আয়ু ৭০-৭২ বছর পাকিস্তান আমলে গড় আয়ু ছিল ২৭ বছর। পরে তা বেড়ে হয় ৫৭ বছর। আর ভারতে এখন গড় আয়ু ৬৭ এবং পাকিস্তানে ৬৬ বছর।

বি চৌধুরী বলেন, এত উন্নয়ন হওয়া সত্ত্বেও দুর্নীতি, মাদক এবং সন্ত্রাস আমাদের সব অর্জনকে ব্যর্থ করে দিচ্ছে। সর্বস্তরে দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছে। যা সমাজের ওপর বিশাল প্রভাব ফেলেছে। দুর্নীতি ৫০ ভাগ কমানো গেলে আমাদের জিডিপি ৯ এ নিয়ে আসা মোটেও অসম্ভব নয়।

তিনি দুর্নীতিবাজদের রাষ্ট্রদ্রোহী উল্লেখ করে বলেন, দুর্নীতি দমন শুধুমাত্র দুদককে দিয়ে হবে না। এর জন্য চাই রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় নেতৃত্বের অঙ্গীকার। দুর্নীতি প্রতিরোধে তিনি মা-বোনদের জাগিয়ে তোলার আহ্বান জানান।

বি চৌধুরী সরকারেকে উদ্দেশ করে বলেন, টোটাল পলিটিক্যাল কমিটমেন্ট নিয়ে নামুন, আমরা আপনাদের পাশে আছি।

চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে বিপুল মানুষের প্রাণহানির জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বি চৌধুরী বলেন, দেশে ব্যবহৃত বা মজুদে কেমিক্যাল ও বিস্ফোরক দ্রব্যের হিসাব চাই। যেখানে লোক বসবাস করে সেখানে এসব মজুদ রাখা যাবে না। এ ব্যাপারে সরকারকে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি এতদিনেও সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষা প্রচলন না হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, হাইকোট বা সুপ্রিম কোর্টসহ কোথায়ও বাংলায় রায় লেখা হয় না। তিনি এখন থেকে বাংলায় রায় লেখার জন্য বিচারপতিদের প্রতি আহ্বান জানান।

লেবার পার্টির সভাপতি হামদুল্লাহ আল মেহেদীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএলডিপির চেয়ারম্যান নাজিমউদ্দিন আল আজাদ, বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মজহারুল হক শাহ চৌধুরী, বিকল্পধারার সহ-সভাপতি এনায়েত কবীর, বিজেডি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জয় চৌধুরী, বাসদের সভাপতি সরদার শামস আল মামুন, বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া, লেবার পার্টির মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*